২৯ ফ্রি অনলাইন ডিজাইন টুলঃ অপূর্ব সুন্দর ওয়েব কনটেন্ট বানাতে

২৯ ফ্রি অনলাইন ডিজাইন টুলঃ অপূর্ব সুন্দর ওয়েব কনটেন্ট বানাতে

নিউজ ও ইভেন্ট ব্যবসায়িক পরামর্শ

ফ্রি কিছু কে পছন্দ না করে ?

কিছু করা জন্য যদি আপনি একটি ফ্রি টুল পান তাহলে আপনার মার্কেটিংয়ের জন্য পে করতে হবে না। সেক্ষেত্রে আপনি যতক্ষণ ফ্রি টুল থেকে কোয়ালিটি রেজাল্ট পাবেন ততক্ষণ পর্যন্ত বাজেট নস্ট করার কোন মানে হয় না ।

এই পোস্টে আমি অসাধারন কিছু ফ্রি টুলের কথা বলবো যেগুলোর জন্য আপনাকে এক পয়সাও ব্যয় করতে হবে না। টেম্পলেট, ব্রাউজার একেস্টেনশান, থেকে অনলাইন ফটো এডিটর সব কিছুই আছে এ তালিকায়। এসব অসাধারন ফ্রি ওয়েব ডিজাইন টুল সম্পর্কে জানতে হলে পড়তে থাকুন

ফ্রি ফন্ট টুলস

১। টাইপ জিনিয়াস

আপনার পরের প্রজেক্টের জন্য হয়ত পারফেক্ট ফন্ট কম্বিনেশন প্রয়োজন । টাইপ জিনিয়াস তার ব্যবহারকারিদের জন্য অসাধারন কম্বিনেশনের ফন্টস পাওয়াকে সহজ করেছে। এটি বাস্তব উদাহরণের মাধ্যমে ফন্টের ব্যবহার দেখিয়ে থাকে যাতে করে আপনি খুব সহজেই বুজতে পারবেন ফন্টগুলো আপনার জন্য সঠিক কিনা ।

1

২। গুগল ফন্টস

আপনি যদি আপনার পরের প্রজেক্টের জন্য কোয়ালিটি সম্পন্ন টাইপোফ্রাফি খুজে থাকেন তবে গুগল ফন্ট চেক করুন।ওয়েব ফন্টের এই ডাইরেক্টরি ব্যবহারকারিদের জন্য তাদের ওয়েব সাইটে সেকেন্ডের মধ্যে ফন্ট যোগ করার বা আপনার কম্পিউটারে ডাউনলোড করে রেখে পরে পরে ব্যবহারের সুবিধা দেয়। এখানকার সব ফন্টই ওপেন সোচ মানে। ব্যবহারকারী কাস্টমাইজড করতে, উন্নতি করতে, এবং শেয়ার করতে পারবে।

 

৩। হোয়াটফন্ট

আপনি হয়ত কোন ওয়েব সাইটে গিয়ে একটি ফন্ট দেখে ভাবলেন এমন কিছু একটাই আপনি চাচ্ছেন। হোয়াটফন্ট এর  সাহায্য নিয়ে আপনি শুধু মাত্র এক ক্লিকেই, সহজেই জেনে নিতে পারেন ফন্টের নাম। এটি ডাউনলোড এবল বুক মারকেলেট, গুগল ক্রম একেস্টেনশান, অথবা সাফারি একেস্টানশান এর জন্য। এখন থেকে আপনি আর কখনোই কোন পছন্দের ফন্টের নাম জানতে না পেরে হতাশ হয়ে থাকবেন ন।

3

৪। ডাফন্ট ৫। ১০০১ ফ্রি ফন্টস ৫। ফন্ট স্কুইরেল

আপনার ডিজাইনকে খুব সুন্দর করতে বিশেষ ফন্টের দরকার হতে পারে। অনলাইনে হাজারো ফ্রি রিসোরচ রয়েছে। আমি তাদের থেকে ছেটে আমাদের পছন্দের কয়েকটি একত্রিত করেছিঃ ডাফন্ট,  ১০০১ ফ্রি ফন্টস , ফন্ট স্কুইরেল ।

এই সাইটগুলো ফন্টের ব্যপক এক লাইব্রেরি অফার করে যেগুলো খুবই উচ্চমান সম্পন্ন, সহজে ডাউনলোড করা যায় এবং স্পস্টভাবে লাইসেন্সিংশর্ত উল্লেখ করা আছে।

৭। টিফ

আপনি হয়ত দুটো ফন্টের  মধ্যে তুলনা করতে গিয়ে হিমসিম খাচ্ছেন। এমনটা হলে টিফের সাহায্য নিতে পারেন। টিফের সাহায্যে ব্যবহারকারীরা একটি ফন্ট অন্যটির উপরে বিছিয়ে দিতে পারে যাতে করে তাদের মধ্যকার পার্থক্য সহজেই ধরতে পারা যায়।

এমনকি আপনি ঠিক কোন কোন অক্ষর তুলনা করে দেখতে চান তাও ঠিক করে দিতে পারেন তাদের আপার কেস ও লোয়ার কেস দুই ধরনের ক্ষেত্রেই। টিফ এখন সব গুগল ওয়েব ফন্ট এবং যেকোন সিস্টেম ফন্ট সাপোর্ট করে। সবচেয়ে ভাল সেবা পেতে

এই সাইটটি সাম্প্রতিক ব্রাউজার ভার্সন ব্যবাহারের পরামর্শ দিয়ে থাকে।

Tiff

ফ্রি টেমপ্লেটস

৮। হাব স্পটের ১০ ইনফোগ্রাফিক টেমপ্লেটস

প্রায়শই আমাদের ভিজুয়াল কনটেন্ট বানানোর প্রয়োজন পরে। সমস্যা হলো আপনার যদি ডিজাইন করার অভিজ্জতা না থাকে তবে গ্রাফিক্স বানাতে আপনাকে খুবই সমস্যায় পরতে হয়। এই ফ্রি ইনফোগ্রাফিকের প্যাক দিয়ে আপনি প্রফেশনাল লোকিং ইনফোগ্রাফিক বানাতে পারবেন এবংবহু ঘণ্টা সময়ও বাচাতে পারবেন। সবচেয়ে  ভাল দিকটি হচ্ছে আপনার কোম্পানির ব্যন্ডের সাথে মানিয়ে নেয়ার জন্য আপনি খুব সহজেই কাস্টমাইজ করতে পারবেন।

infographic-templates-8

৯ কেনভা

আপনি যদি ই-বুক, ইনফোগ্রাফিক, বিজনেস কার্ড বা ইমেইল হেডার বানাতে চান তবে কেনভা আপনার এই প্রক্রিয়াকে সহজ করে দিবে। মুলত এই ফ্রি ওয়েব ডিজাইন টুলটি আপনাকে আপনার ভাবনার মত করে প্রফেশানাল, সহজে কাস্টমাইজ করা যায় এমন সব কাজের সুযোগ দিবে।

সবচেয়ে ভাল অংশ ?

ডিজাইনার নন এমন লোকদের কথা মাথায় রেখেই এই টুলটি ডিজাইন করা হয়েছে। শুধুমাত্র ড্রাগ করে ছেড়ে দিয়েই আপনার মনের মত করে ডিজাইন করে নিতে পারেন। ইমেজ পরিবর্তন, ফন্ট বসানো, রঙ ঠিক করা আরো অনেক কিছু করা যাবে এই টুল দিয়ে। আপনি এটি দিয়ে এমন সব ডিজাইন করতে পারবেন যার জন্য আপনি নিজেকে নিয়ে গর্ববোধ করতে পারবেন।

১০। হাব স্পটের ৫০ কাস্টমাইজএবল সিটিএ টেমপ্লেটস

আপনি যদি চান আপনার সাইটে ভিজিটররা নিদ্রিস্ট কোন কাজ করুক তাহলে সেটা খুবই সহজভাবে বানাতে হবে । যার কারনে সিটিএ আগমন। আপনার বাটনের পেছনে ডিজাইনের পাশাপাশি, রং, সাইজ, এবং শ্যাপ সব কিছুরই গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রয়েছে। ভিজিটরদেরকে উৎসাহ দিতে হাব স্পট ৫০ টি প্রি ডিজাইন টেম্পেট করে রেখেছে যেগুলো আপনি আপনার সাইটে কাজে লাগাতে পারেন। এই টেম্পলেটগুলো কাস্টমাইজ এবল এবং এগুলোকে রং ও প্লেসমেন্টের পরিবর্তন করে সাইটের সাথে মানানসই করে ব্যবহার করা যাবে।

CTA_Templates

১১। প্লেসইট

মাজে আপনার ওয়েবসাইট, ব্লগ বা টুইটার একাউন্টের প্রফাইলের জন্য আপনার কিছু পলিসড করা ইমেজের দরকার হতে পারে। আপনি হয়ত আপনার নেয়া স্ক্রিনশটটিকে ম্যানুয়ালি কাস্টমাইজ করতে চাইছেন। প্লেসইট এসবের দারুন এক সমাধান। সরাসরি কমন স্টক ফটো টেম্পলেট আপলোড করুন এবং দেখুন আপনার স্ক্রিন শট এ জীবন ফিরে আসছে।

placeit

১২। হাব স্পটের ৫ পাওয়ার পয়েন্ট স্লাইড শেয়ার টেমপ্লেটস

স্লাইড শেয়ারের ধারনা আপনার হয়ত বেশ ভালো লাগে কিন্তু পাওয়ার পয়েন্টে ডিজাইন করতে আপনার কোন  অভিজ্জতা নেই। কোন সমস্যা নেই। বেশি কোন প্রচেষ্টা ছাড়াই আপনি এদের ব্যবহার করতে পারবেন। শুধু আপনার কনটেন্ট যোগ করুন, রং সমন্বয় করুন আপনার ব্র্যান্ডের সাথে মিল রেখে, এবং ইমেজ যোগ করুন। এই টেম্পলেটগুলো খুব সরল থেকে জটিল রেঞ্জের মধ্যে।

ফ্রি কালার টুলস

১৩। পিকটাকুলাস

ওয়েব ডিজাইনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে কালার প্যালেট– আপনি চাইবেন আপনার ইমেজ, গ্রাফিক্স এবং ফন্টস সব কিছুই যেন আপনার ম্যাসেজটি বহন করে এবং কনভারশান বাড়ায়। প্রায়শই দেখা যায় আপনি হয়ত কোন একটি রং যেমন নীলের সঠিক শ্য্যড খুজে পাচ্ছেন যা আপনি আপনার কোন ফটোগ্রাফ এ ব্যবহার করতে চাচ্ছেন– এই প্রয়োজনেই পিকটাকুলাস এসছে। আপনি একটি ছবি আপলোড করুন এবং এটি আপনাকে পরামর্শ দিবে রং ব্যবহারের ,তাদের হেক্স কোড সহ। আপনার কালার পেলেট আর কখনোই অসামঞ্জস্যপূর্ণ হবে না।

pictaculous

১৪। কালারজিলা

সবচেয়ে বেসিক থেকে সবচেয়ে এডভান্স কালার সম্পর্কিত প্রয়োজন মেটাতে কালারজিলা অসাধারন একটি টুল। আপনি যদি কোন ওয়েব পেইজের নিদ্রিস্ট পিক্সেলের হেক্স কোড খোজ করেন, বা রঙয়ের ডোম উপাদান বিশ্লেষণ অথবা জানতে চান ইলিমেন্ট তথ্য যেমন ট্যাগ নেম, আইডি, এবং সাইজ, তাহলে এই টুলটি একাই এসব বিষয়ে আপনাকে সাহায্য করতে পারে। এই টুলটিকে আপনি পেতে পারেন গুগল ক্রমের এক্সটেনশান হিসেবে বা ফায়ার ফক্স এডঅন হিসেবে। একবার ব্যবহার শুরু করলে এটি আপনার প্রিয় একটি ডিজাইন টুলে পরিণত হবে এ কথা নিশ্চিত করেই বলা যায়।

ফ্রি এনোনেসন টুল

১৫। অসাম স্ক্রিন শট

আপনি হয়ত স্ক্রিন শট নেয়া, কর্প, এডিট, এবং পাদটিকা দেয়ার জন্য একাধিক প্রোগ্রাম নিয়ে হিমসিম খাচ্ছেন। অসাম স্ক্রিন শট একটি ফায়ার ফক্স এবং ক্রম এর একটি ব্রাউজার এক্সেটেনশান যা দিয়ে আপনি খুব সহজেই ওয়েবের যেকোন কিছু স্ক্রিন শট হিসেব নিতে এবং এডিট করতে পারেন। এটি সরাসরি ব্রাউজারের মধ্যেই সেটা করা হয়ে থাকে। এই এক্সেসটানশানটিও হতে পারে আপনার ব্রাউজার অবিছেদ্য একটি অংশ। আপনিও এটি ব্যবহার শুরুর পর পুরনো অন্য সব স্ক্রিন শট নেবার প্রোগ্রাম কাছে ফিরে যাবেন না।

awesome_screenshot

১৬। স্কিটস

এটি এভারনোটের একটি স্ক্রিন ক্যাপচার প্রোগ্রাম। এটি মার্কেটার ও ডিজাইনারদের জন্য দারুন এক ফ্রি টুল। ব্যবহারকারীরা তাদের পুরনো বা নতুন স্ক্রিন শটে শেপ, এরো, টেক্সট, এবং ডুডল ব্যবহার করে ক্যাপসান দিতে পারেন। আপনি যদি আপনার কাজ করা ইমেজগুলো কোন সংঘঠিত, ক্লাউড বেজড জায়গায় সংরক্ষণ করে রাখতে চান তবে এভারনোট ব্যবহার করতে পারেন, এদের ফ্রি সার্ভিস ও আছে। এভাবনোটে একাউন্ট না থাকলে কোন সমস্যা নেই। কেননা সব ধরনের ক্যাপচারিং, মার্ক আপ, সেভিং, এবং শেয়ারিং ফাংশনের জন্য কোন এভাবনোটে একাউন্টের প্রয়োজন নেই।

ফ্রি ফটো এডিটিং টুলস

১৭। পিক মাঙ্কি

আপনার হয়ত পাওয়ার পয়েন্টে ব্যবহার করার জন্য কিছু ভিজুয়াল কনটেন্ট প্রয়োজন কিন্তু ফটোশপের (যদিও আমরা ফটো শপ বিনা পয়সায় ব্যবহার করতে পারি) জন্য কোন বাজেট নেই, কি করতে পারেন ভাবছেন। আপনি যদি আপনার ইমেজ রি-কালার করতে চান, বর্ডার দিতে চান, টেক্সট যোগ করতে চান, এমনকি গ্রাফিক্স বসাতে চান— এগুলোর সবই আপনি অরো একটি সফটওয়ার ডাউনলোড না করেই করতে পারবেন, পিকমাঙ্কি ব্যবহার করে।

Picmonkey

১৮। বিফানকি

আপনি যদি সুন্দর, ইন্সটাগ্রাম ফটো ফিল্টার খুজে থাকেন তবে আপনি বিফানকিকে অবশ্যই পছন্দ করবেন। এই ফ্রি ফটো এডিটিং টুলটির রয়েছে অসাধারন সব ফিচার যেমনঃ ইফেক্টস, ফ্রেমস, গ্রাফিক্স, এবং টেক্সচার। আপনি একজন ডিজাইনার হন বা না হন এর ইন্টারফেজ খুব সরল একই সাথে সহজেই বোধগোম্য । সাধারন কোন ইমেজকে অসাধারন করতে বা সোশ্যাল মিডিয়াতে কোন কোলাজ শেয়ার করতে আপনার দরকার হবে শুধুমাত্র কয়েকটি ক্লিকের।

BeFunky_Photo_Editor

১৯। ভিএসসি ও কেম এবং ২০। স্নেপ সিড

এগুলো ওয়েব ডিজাইন টুল না হলেও আপনার জন্য খুবই উপকারি কিছু টুল হবে। মনে করুন আপনি একটি অনুষ্ঠানে আছেন, সেখান থেকে অসাধারন একটি ইমেজ নিয়েছেন,যে তা আপনি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে  চাচ্ছেন কিন্তু একটি সমস্যা ছবিটা অন্ধকার দেখাচ্ছে। আপনার সাথে ল্যাপটপ ও নেই। এখন উপায় ? মোবাইল ফটো এডিটিং এপ  ভিএসসি ও কেম এবং স্নেপ সিড দিয়ে আপনি খুব সহজেই ইমেজের পরিবর্তন করে নিতে পারে ঠিক যেমনটি আপনি চান। উভয়ই এপই এন্ড্রইয়েড ও আইওএস এ ফ্রি পাওয়া যায়

ফ্রি স্টক ফটো রিসোরচ

২১। কমফাইট

আপনি যদি সৃস্টিশীল ইমেজ খুজে থাকেন কিন্তু সার্চ ইঞ্জিনে তাদের পেতে গিয়ে নানা রকম জামেলাপূর্ণ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয় তবে চেক করে দেখতে পারেন কম ফাইট। কম ফাইট এর একটি এলগোরিদম আছে যার মাধ্যমে সবচেয়ে সুন্দর ইমেজকে সবার উপরে প্রদর্শন করা হয়।

বোনাসঃ এট্রিবিউশান নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই কেননা এটি সয়ংক্রিয়ভাবে এইচটিএমএল কোড জেনারেট করে যেখানে আসল লেখককে ক্রেডিট দেয়া হয় ।

২২। ডেথ টু স্টক ফটো

প্রতি সপ্তাহে আপনি যদি হাই কোয়ালিটি ইমেজ পেতে চান তবে আপনার শুধু একটি ইমেইল এড্রেস থাকলেই হবে। অফিস শট থেকে শুরু করে জিভে জল আনা খাবারের ছবি এই ফ্রি স্টক ফটো সার্ভিসের এক ছবির সংগ্রহ আছে বিশাল যা যে কারো চাহিদা মেটাতে সক্ষম। এই ছবিগুলো ব্যবহার করতে পারেন আপনার ওয়েব সাইটে, সোশ্যাল চ্যানেলে, মক আপে ।

Compfight

২৩। হাব স্পটের স্টক ফটো

আপনি যদি এট্রিবিউট ফ্রি ছবি পেতে চান যা আপনি আপনার ডিজাইনে ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনি হাব স্পট এর ফ্রি ইমেজ স্টক দেখতে পারেন। হাব স্পট হাজারো ফ্রি ইমেজ অফার করে যা আপনি যেখানে খুশি ব্যবহার করতে পারেন। তার জন্য যা আপনাকে করতে হবে তা হল শুধুমাত্র ডাউনলোড।

berries

২৪। হাব স্পটের ২৫০ হলিডে স্টক ফটো’স

নিদ্রিস্ট কোন ক্যাটাগরির ছবি যদি আপনি হাবের আগের স্টক থেকে খুজে না পান তবে এখানে দেখতে পারেন। এখানে হলিডে সম্পর্কিত সব ছবি পাওয়া যায় যেমন হোলোয়েন, থ্যাঙ্কস গিভিং, হানুকাহ, ক্রিসমাস, এবং নিউ ইয়ার্স।

২৫। আনপ্লাস

আপনি যেমনটা চান ঠিক তেমন ধরনের ছবি পেতে আন প্লাস এ যেতে পারেন। এখানেও ছবি ব্যবহারের জন্য এট্রিবিউশান দিতে হবে না

UnSplash

ফ্রি ইণ্টার এক্টিভ ডিজাইন টুল

২৬। ইনফোজিআর ডট এম

আপনি যদি খুব সাধারন ধরনের ইনফোগ্রাফিক পছন্দ না করে ইন্টারএক্টিভ ইনফোগ্রাফিক পছন্দ করলে এই অনলাইন ডিজাইন টুলটি চেক করে দেখতে পারেন। এর সাহায্যে আপনি এই প্রোগ্রাম গভীরে না গিয়েও সহজেই গ্রাফ, মানচিত্র, টেক্সট, এবং এমনকি ভিডিও যোগ করতে পারেন।এর ইনফোগ্রাফিকের ডানে আছে সোশ্যাল শেয়ারিং টুলস তাই কাস্টম পিন-ইট বাটন তৈরি করা নিয়ে চিন্তা করতে হবে না।

infogr.am_example

২৭। ইনভিশিন এবং ২৮। মারভেল

আপনার কোন জটিল ডিজাইনের প্রয়োজনে আপনি হয়ত কোন ফটো টাইপ এপ খুজে নিতে পারেন। এটি আপনার ধারনাকে বাস্তবে পরিণত করে দেবে। অনলাইনে ফ্রি অনেক অপসান থাকলেও সহজ ব্যবহার ও কার্যকারিতার দিক দিয়ে আমি বেছে নিয়েছি এই দুটিকে।

অবশ্য ইনভিশিন ফ্রির পাশাপাশি এডভান্স গ্রাহকদের জন্য পেইড সার্ভিসের ব্যবস্থাও রেখেছে ।

ফ্রি ড্রয়িং টুলস

২৯। গুগল ড্রয়িং

মাইক্রোসফটের অদ্ভুদ পেইন্ট ড্রয়িংকে বিদায় বলে পলিসড ও প্রফেশনাল গুগল ড্রয়িংকে হ্যালো বলতে পারেন। আপনার যদি একটি ব্যাক্তিগত জিমেইল একাউন্ট থাকে বা আপনার কোম্পানি যদি গুগল এপ ব্যবহার করে তবে কাস্টম ভিজুয়াল কনটেন্ট বানাতে পারেন।

Google_Drawing

 

তথ্যসুত্রঃ

http://blog.hubspot.com/blog/tabid/6307/bid/33899/13-Free-Design-Tools-for-Visual-Marketers-on-a-Budget.aspx

http://blog.proofhq.com/best-free-design-tools-007309/

https://creativemarket.com/blog/2015/01/26/10-graphic-web-design-tools-that-will-explode-in-2015

 

আশা করি এই পোস্টটি আপনাকে দরকারী কিছু তথ্য দিয়েছে। পরবর্তী পোস্ট পাওয়ার জন্য সাথেই থাকুন! সমাহার ডট নেট-এর পণ্য সামগ্রী ও সেবা পেতে রিসেলার, সেলার সেন্টারে সরাসরি যোগাযোগ করুন।

Leave a Reply