ফ্রিজ কেনার আগে যা জানা প্রয়োজন

Article

রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজ এখন আর বিলাসী পণ্য নয় বরং জীবনযাপনের অপরিহার্য অংশ। তাই ফ্রিজ কেনার আগে বেশকিছু বিষয় নজরে রাখতে হবে।

বিশেষ করে ফ্রিজ কেনার আগে এর স্থায়িত্ব ক্ষমতা, আকার, ডিজাইন, বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের সুবিধা ও প্রযুক্তির ওপর জোর দেয়া দরকার। দাম একটু বেশি হলেও এসব বিষয়ে আপস করা উচিত নয়। সাধ্যের মধ্যে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ফ্রিজ কেনা হবে সঠিক কাজ।

সংশ্লিষ্টদের মতে রেফ্রিজারেটর কেনার ক্ষেত্রে অবশ্যই ভালো কম্প্রেসার, বিদ্যুৎসাশ্রয়ী ক্ষমতা, ফ্রিজের ভেতরের জায়গা সম্পর্কে জেনে নিতে হবে। সাধ্য অনুযায়ী সর্বশেষ প্রযুক্তির ফ্রিজ কেনা উচিত। ভালো ফ্রিজ শুধু খাবারের পুষ্টিমানই রক্ষা করে না, জীবনযাপনেও অনেক স্বাচ্ছন্দ্য আনে।

রেফ্রিজারেটর কেনার আগে যেসব বিষয়ে দেখতে হবে-

কম্প্রেসার
ফ্রিজের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ কম্প্রেসার। এটি যত উন্নতমানের হবে ততই দ্রুত ঠাণ্ডা হবে ফ্রিজ। অত্যাধুনিক ইনভার্টার কম্প্রেসার রয়েছে এমন মডেলের ফ্রিজ কেনাই ভাল। এতে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হয় এবং ভোল্টেজের ওঠানামাতেও ঠিকঠাক কুলিং হয়।

বিদ্যুৎসাশ্রয়ী
বিদ্যুৎসাশ্রয় মানে খরচ কম। তাই যত বেশি সম্ভব জ্বালানিসাশ্রয়ী রেফ্রিজারেটর কেনা উচিত। ঘরের ফ্রিজটি জ্বালানিসাশ্রয়ী হলে প্রতি মাসে বিদ্যুৎ বিল কমে যাবে। এমনকি ফ্রিজ কেনার প্রাথমিক খরচও এই সাশ্রয়ের মাধ্যমে পাওয়া সম্ভব। ফ্রিজের গায়ে স্টার চিহ্ন দিয়ে এর জ্বালানিসাশ্রয় ক্ষমতা বোঝানো হয়। তাই কোন ফ্রিজে কতটুকু বিদ্যুৎ খরচ হয় তা অবশ্যই দেখে কিনতে হবে। বর্তমানে ফোর স্টার বা ফাইভ স্টারের নিচের কোনও মডেল না কেনাই ভাল

আকার ও মডেল
ফ্রিজ রাখার স্থান অনুযায়ী এর আকার ও মডেল পছন্দ করা গুরুত্বপূর্ণ। একই সঙ্গে বাইরে থেকে বড় দেখা গেলেও ফ্রিজের ভেতরে কতটুকু জায়গা রয়েছে তাও বিবেচনা করতে হবে। এজন্য আধুনিক প্রযুক্তির নো ফ্রস্ট বা বরফ জমে না এমন রেফ্রিজারেটর কেনাই ভাল। এছাড়া ডাবল ডোর ফ্রিজ কিনতে পারেন। এতে স্টোরেজ স্পেস অনেকটা বেশি পাওয়া যায়। ব্যস্ত পরিবারে যেখানে সবাইকে রোজ বাইরে বের হতে হয় তাদের পক্ষে এ ধরনের ফ্রিজই ভাল, কারণ মাছ-মাংস ইত্যাদি অনেকটা একসঙ্গে স্টোর করা যায়।

সজীবতা
ফ্রিজ এখন শুধু খাবারের পচন রোধেই কেনা হয় না, বরং খাবারের সজীবতা রক্ষাও গুরুত্বপূর্ণ। তাই খাবারের আর্দ্রতা ও সজীবতা দীর্ঘদিন ধরে রাখতে নো ফ্রস্ট ফ্রিজ সবচেয়ে কার্যকর। কেননা পরিষ্কার করার জন্য আপনাকে কখনওই ফ্রিজ বন্ধ করতে হবে না। এছাড়া সবজির সজীবতা রক্ষার জন্য ফ্রিজের ভেজিটেবল বক্সে সঠিক আর্দ্রতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ডিজাইন ও রঙ
শোবার কিংবা রান্নাঘর যাই হোক না কেন ঘরের সৌন্দর্য বাড়াতে ফ্রিজের ডিজাইন ও রঙ গুরুত্বপূর্ণ। সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় করে দুই দরজা, ডোর ইন ডোর বা সাইড বাই সাইড ডিজাইনের ফ্রিজ কিনতে পারেন। এগুলোতে ওয়াটার ডিসপেন্সারও পাবেন। অর্থাৎ ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার জন্য আর বোতল হাতড়াতে হবে না। ফ্রিজের গায়ের ডিসপেন্সারটি অন করলেই ঠাণ্ডা পানি পাবেন।

ওয়ারেন্টি
ফ্রিজ কেনার আগে অবশ্যই যতটুকু সম্ভব দীর্ঘমেয়াদের ওয়ারেন্টি নেয়া ভাল। বাজারে বিভিন্ন ধরনের ফ্রিজের কম্প্রেসারের ওপর ৫, ৮ ও ১০ বছর মেয়াদি ওয়ারেন্টি রয়েছে।

দেশে দুই ধরনের ফ্রিজ বিক্রি হয়। একটি সাধারণ রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজ অন্যটি ফ্রিজার বা ডিপ ফ্রিজ। এর মধ্যে ১০০ লিটার ওজন থেকে ৬০০ লিটার ধারণক্ষমতাসম্পন্ন পর্যন্ত ওজনের ফ্রিজ পাওয়া যায়। তবে বিক্রি বেশি হয় ১৫০ লিটার থেকে ৩০০ লিটার ধারণক্ষমতার ফ্রিজ। এ ফ্রিজগুলো মধ্যম আয়ের মানুষের বেশি পছন্দ। যার দাম পড়বে ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা।

ভিশন
কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে জনপ্রিয় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্র্যান্ড ভিশন নিয়ে এসেছে আটটি নতুন মডেলের রেফ্রিজারেটর। রঙের বৈচিত্র্য, আকর্ষণীয় ডিজাইন ও বিদ্যুৎসাশ্রয়ী করে তৈরি করা হয়েছে মডেলগুলো। নতুন মডেলের ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরগুলো ক্রেতারা কিনতে পারবেন ২৮ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকায়। এর মধ্যে ২১২ লিটারের একটি ডিপ ফ্রিজ রয়েছে।

আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ভিশন ফ্রিজে রয়েছে পাঁচ শতাংশ ছাড়। এছাড়া ক্রেতারা ভিশন এম্পোরিয়াম থেকে ফ্রিজ কিনে পাচ্ছেন আকর্ষণীয় সব পুরস্কার এবং কুপন জিতে থাইল্যান্ড ও নেপাল ভ্রমণের সুযোগও রয়েছে। ভিশনের প্রতিটি ফ্রিজের কম্প্রেসারে রয়েছে আট বছরের ওয়ারেন্টি, সহজলভ্য কিস্তিতে তিন মাস থেকে ১২ মাস পর্যন্ত ক্রয়ের সুযোগ। এছাড়া ১৫টি ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে কিস্তিতে ফ্রিজ ক্রয়ের সুবিধাও রয়েছে।

ভিশনের পছন্দের ফ্রিজটি যেন সহজেই কিনতে পারেন সেজন্য সারাদেশে রয়েছে ভিশন এম্পোরিয়াম, আরএফএল বেস্ট বাই ও ভিশন এক্সক্লুসিভের দুই হাজারেরও বেশি শোরুম। এসব শোরুম থেকে ফ্রিজ কিনলে রয়েছে ফ্রি হোম ডেলিভারির ব্যবস্থা।
vision

ওয়ালটন
কোরবানির ঈদ উপলক্ষে গ্রাহকদের জন্য ওয়ালটনের ফ্রিজের কোনো অফার দেয়া হয়নি। ওয়ালটনের ফ্রিজগুলোর ধারণক্ষমতা ১২৯ লিটার থেকে শুরু করে ৩৬৫ লিটার পর্যন্ত। ১২৯ লিটারের ফ্রিজের দাম ১৭ হাজার ৭০০ টাকা। ৩৬৫ লিটারের ফ্রিজের দাম ৩২ হাজার টাকা।

১৪৬ লিটার থেকে ৩০০ লিটারের ডিপ ফ্রিজও রয়েছে। যার দাম ১৯ হাজার ৭০০ টাকা, আর ৩০০ লিটারের ফ্রিজের দাম ২৯ হাজার ৮০০ টাকা। এছাড়া ৫০৮ লিটারের নো ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরের দাম নেয়া হচ্ছে ৬৭ হাজার ৫০০ টাকা।

স্যামসাং
বাংলাদেশে এ প্রতিষ্ঠানের ফ্রিজগুলো আমদানি করে ট্রান্সকম ইলেকট্রনিক্স লিমিটেড। ঈদ উপলক্ষে সব পণ্যেই চলছে ৫০০ থেকে ১৭শ টাকার নগদ মূল্যছাড়। এছাড়া মোটরসাইকেল, এলইডি টিভিসহ বিদেশ ভ্রমণেরও সুযোগ রয়েছে। ২১৫ থেকে ৬০০ লিটারের ফ্রিজ পাওয়া যাচ্ছে। যার দাম পড়ছে ৪০ হাজার থেকে দুই লাখ ২১ হাজার টাকা। এছাড়া ইলেক্ট্রা ব্র্যান্ডের ১০০ থেকে ৩০০ লিটার ডিপ ফ্রিজ বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ১৭ হাজার থেকে ৩৭ হাজার টাকায়।

হিটাচি
হিটাচির ফ্রিজগুলোর বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো এর ডাবল ফ্যান কুলিং সিস্টেম ও ইনভার্টার প্রযুক্তি। সবচেয়ে বড় ৬৫০ লিটারের ফ্রিজের দাম পড়বে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা। সর্বনিম্ন ৩৭৫ লিটারের ফ্রিজের দাম ৮০ হাজার টাকা।

সিঙ্গার
ঈদুল-আজহাকে সামনে রেখে মাসব্যাপী ঈদ অফার চালু করেছে সিঙ্গার। ‘ঈদ অফারে সবাই কাত, ৩০০ ফ্রি ফ্রিজে বাজিমাত’ শীর্ষক ক্যাম্পেইনটি চলছে পুরো আগস্ট মাস জুড়ে।

ক্যাম্পেইনে ফ্রিজ/ফ্রিজার ক্রেতাদের জন্য থাকছে পুরো আগস্ট মাসজুড়ে ৩০০টি ফ্রি ফ্রিজ জেতার সুযোগ। সিঙ্গার ফ্রিজ/ফ্রিজার কিনে ক্রেতা তার নিজস্ব মোবাইল নম্বর থেকে ৬৯৬৯ নম্বরে ম্যাসেজ পাঠিয়ে দিয়ে ক্রয়কৃত ফ্রিজ/ফ্রিজারটির পুরো মূল্য ফেরত পেতে পারেন। এখন পর্যন্ত ২০০ ক্রেতাকে ফ্রি ফ্রিজ হাতে তুলে দিয়েছে সিঙ্গার।

এছাড়া সিঙ্গার ফ্রিজ/ফ্রিজারে ক্রয়ে পাওয়া যাবে ১৫,০০০ টাকা পর্যন্ত ডিসকাউন্ট। সঙ্গে ফ্রিজ/ফ্রিজার ক্রেতাদের জন্য থাকছে ০% ইন্টারেস্টে ছয় মাস পর্যন্ত নগদ মূল্য পরিশোধ এবং ১২ মাস পর্যন্ত সহজ কিস্তি সুবিধা।

এই ক্যাম্পেইনে সিঙ্গার আরও দিচ্ছে টিভি, মাইক্রোওয়েভ ওভেনসহ সবধরনের কিচেন অ্যাপ্লায়েন্সে আকর্ষণীয় সব অফার।

ঈদ অফার নিয়ে সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেডের বিপণন পরিচালক ভাজিরা তেন্নাকুন বলেন, আমাদের সম্মানিত গ্রাহকদের কাছ থেকে আমরা যে অভুতপূর্ব সাড়া পেয়েছি এতে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। এর মাধ্যমে বোঝা যায় আমাদের পণ্যের প্রতি গ্রাহকদের আস্থা রয়েছে আর এ আস্থা ভবিষ্যতের পথচলায় আমাদের উৎকর্ষতাকে বহুগুণে বাড়িয়ে তুলতে উৎসাহিত করবে।

তিনি বলেন, আমাদের প্রত্যাশা, আমরা ঈদ উপলক্ষে বিনামূল্যে যে ৩শ’ ফ্রি ফ্রিজের অফার দিয়েছি, ঈদ ক্যাম্পেইন শেষ হওয়ার আগেই তা সফলভাবে শেষ করতে পারব। এছাড়া ঈদের মধ্যে টেলিভিশন, মাইক্রোওভেন ও অন্যান্য কিচেন অ্যাপ্লায়েন্স ক্রয়ে আমাদের আকর্ষণীয় অফার রয়েছে।
vision

এলজি বাটারফ্লাই
এলজি বাটারফ্লাইতে চলছে স্ক্র্যাচ কার্ড অফার। আট হাজার টাকার ওপরে পণ্য কিনলেই স্ক্র্যাচ কার্ডের মাধ্যমে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে শতকরা একশ ভাগ ডিসকাউন্ট পেতে পারেন ক্রেতারা।

এলজির ১৮০ লিটারের ছোট ফ্রিজ ২১ হাজার ৮০০ টাকা, আর ৬১৮ লিটারের বড়টির দাম প্রায় দুই লাখ টাকা। ডিপ ফ্রিজ পাবেন ২২ হাজার টাকা থেকে ৪০ হাজার টাকার মধ্যে। ওয়ারেন্টি ১০ বছর।

সার্প
সার্প ব্র্যান্ডের ফ্রিজ পাওয়া যাচ্ছে ১৯৬ লিটার থেকে ৭০০ লিটার পর্যন্ত। যার দাম পড়বে ৪০ হাজার থেকে এক লাখ ৫৫ হাজার টাকা। ১২০ থেকে ৪৯২ লিটারের ডিপ ফ্রিজ বিক্রি হচ্ছে ২২ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকায়। মাইক্রো ওভেন, আইসক্রিম কার্টনসহ হোম ডেলিভারি ফ্রি।

Leave a Reply